হ্যাঁ, রাজনীতি করেছি

  • 02 August, 2020
  • 1 Comment(s)
  • 153 view(s)
  • লেখক: অর্জুন সেনগুপ্ত

হ্যাঁ, রাজনীতি করেছি। চিৎকার করে বলছি ত্রাণ নিয়ে রাজনীতি করেছি। কে জানি বলেছিলো না রাজনীতি তা সে যে রাজনীতিই হোক না কেন শেষ বিচারে তা মানুষে মানুষে বিভেদ আনে? শেষ বিচারে তা অমানবিক! সে অমানবিকতাই করেছি    বাধ্যবাধকতা থেকে। সেই বলেছিলো না রাজনীতির হাত থেকে মানুষ মুক্তি পাবে শ্রেণি বিলুপ্ত হলে!!

আমরা ইউনিয়ন থেকে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম ত্রাণ দেব তাদেরই যারা সমাজে সব থেকে উপেক্ষিত। যাদের কাছে পৌঁছাবে না প্রায় কেউই। তাই আমরা ত্রাণ দিয়েছি যৌন কর্মীদের, অট্টালিকা সম হাউজিং কমপ্লেক্সে বসবাসকারী অসহায় বৃদ্ধ বৃদ্ধাদের যাদের পুত্র কন্যারা বিদেশে কর্মরত তাদের সহায়তা করিনি। ত্রাণ দিয়েছি বস্তিবাসীদের, এমনকি চাকুরিরত শ্রমিক যাদের মায়না বন্ধ হয়েছে এক-দুই মাস তাদেরও দিইনি প্রায়। স্বাস্থ্য কর্মীদের মধ্যে যারা সব থেকে  প্রতারিত সেই আশা কর্মী, এ এন এম -দের হাতেই বেশির ভাগ মাস্ক, স্যানিটাইজার, পি পি ই তুলে দিয়েছি, ডাক্তার, নার্সদের নয়। যদিও শেষোক্তরা ভীষণ ভাবে আমাদের শ্রেণির অন্তর্গত। হ্যা, রাজনীতি করেছি।

যদি ভাবেন ভালোমানুষি করে ত্রাণের কাজ করেছি ওসব ছেলেমানুষি ছাড়েন ; মশাই রাজনীতি করেছি, রাজনীতি!  সব সরকার তাদের  কর্মচারীদের উপর নিজেদের অপদার্থতার দায়ভার  চাপায় বদনাম করে। শ্রমিকদের অন্যান্য সম্প্রদায়ের থেকে বিচ্ছিন্ন করার জন্য তাদের এই কারসাজি। শ্রমিকরাও ভাবে রাজার বেটাগুলো লাগে কোন কাজে? প্রচারের পদাঘাতে বিভ্রান্ত হয়। 

আমাদের কাজের অন্যতম উদ্দেশ্য ছিলো শ্রেণি ভাইদের এই ভুল ভাঙানো। করোনা কন্টকিত আতঙ্কের আবহে চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দেওয়া সরকারি স্বাস্থ্য কর্মী, পুরসভাগুলির কর্মীদের ছাড়া এ সমাজ অচল। পরিবহন চালু হলে বুঝবে সরকারি বাস, ট্রেনের কর্মচারীদের উপযোগিতা। হ্যা রাজনীতি করেছি। রাজনীতি করেছি যখন প্রতিটি ত্রাণ কাজের শেষে সরকার, প্রশাসনকে ইউনিয়নের তরফ থেকে  চিঠি দিয়ে জানিয়েছি তাদের ব্যর্থতার ইতিবৃত্ত। চাপ সৃষ্টি করতে চেষ্টা করেছি সরকারের উপর যাতে সে যে কারণে নির্বাচিত সে ভূমিকা পালন করে।  হ্যা সে রাজনীতি করেছি।

আরেকটা রাজনীতি করেছি। চ্যানেলের মিষ্টি মেয়েদের দিয়ে লাগাতার আতঙ্ক ছড়িয়ে আমাদের অনেককেই ভয় দেখিয়ে গৃহবন্দী করে নিজেদের ফন্দি হাসিল করতে চেয়েছে শাসক। করোনার সূতিকাগারে প্রবেশ করেও সুস্থ থেকে তাদের  বার্তা দিয়েছি অত ভয়ের কিছু নেই, বেরোও বাড়ি থেকে।

ভালোমানুষ নই গো মোরা ভালোমানুষ নই।

রাজনীতি করেছি বেশ করেছি। পরিশেষে আমার, আমার শ্রেণির ও শ্রেণি বহির্ভূত দুর্গতদের কাছে এ অমানবিকতার জন্য ক্ষমা চেয়ে নিই। তাদের কাছে উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে না পৌঁছানোর জন্য। আমরা অপারগ। শুধু আবেদন করি আসুন সবাই মিলে এই মানুষখেকো সমাজটাকে উচ্ছেদ করে এমন এক সমাজ গড়ি যেখানে মানুষে মানুষে এ বিভাজন থাকবে না। আমরা মানুষ হব। সত্যিই।

1 Comments
  • avatar
    রত্না পাল

    30 August, 2020

    লেখাটা বেশ ভালো। কিন্তু 'মায়না' বলে কোন কথা হয় না। আমরা 'মাইনে' লিখি। বাংলা ভাষার এই মিষ্টত্ব বজায় থাকুক এই কামনা করি।

Leave a reply